একটি শীতের সকাল (প্রবন্ধ রচনা)

প্রতিটা সকাল জীবনের শীতের সকালে যখন ঘন কুয়াশায় সবকিছু ঢেকে যায় তখন প্রকৃতিকে অপূর্ব সুন্দর মনে হয়।পাণ্ডুর প্রকৃতির মধ্যে এক নীরব সৌন্দর্য দেখা যায

একটি শীতের সকাল


রচনা নম্বার →১


ভূমিকা :

শীত ঋতু বাংলার প্রকৃতি ও মানবজীবনে মিশ্র প্রভাব বয়ে আনে । শীতের সকালে শীত ঋতু প্রকৃতিতে ধরা দেয় দৃষ্টির সীমানায় । কুয়াশার চাদর মুড়ি দিয়ে শীতের সকাল নতুন আমেজ , নতুন অভিজ্ঞতা বয়ে আনে । রাতের অবসানে দিনের সূচনা হয় সকালের হাত ধরে । সকাল মানে প্রাণের সরব উপস্থিতি , সকাল মানেই আলাের উদ্ভাসন । কিন্তু স্বাভাবিক সকালের সাথে শীতের সকালের পার্থক্য স্পষ্ট । শীতের সকালে প্রকৃতির বুকে জীবন - জাগরণ স্বতঃস্ফূর্ত হয় না । প্রকৃতি ও প্রাণিকুলকে জড়িয়ে থাকে নীরব আড়ষ্টতা । শীতের আগমনে মানুষের মন বলে উঠে -

“ হিম হিম শীত শীত

শীত বুড়ি এল রে

কনকনে ঠাণ্ডায়

দম বুঝি গেল রে । ”


শীতের সকালে প্রকৃতি :

শীতের সঙ্গী কুয়াশা । শীতের রাত ফুরিয়ে গিয়ে দিবসের যখন সূচনা হয় , তখন প্রকৃতির ওপর কুয়াশা ভারি চাদর মেলে দেয় । ঘন কুয়াশার আড়ালে হারিয়ে যায় প্রকৃতি ও নিসর্গের রূপরাশি । দিনের সূচনা তাই ঝলমলে হয়ে ওঠে না । প্রকৃতিকে গ্রাস করে সীমাহীন পাণ্ডুরতা । এক অর্বাচীন আড়ষ্টতায় প্রকৃতি ঝিমিয়ে থাকে । সূর্যের আকাঙ্ক্ষায় পাণ্ডুর প্রকৃতি হয়ে পড়ে উন্মুখ । কনকনে হিমেল হাওয়া স্তন্ধ প্রকৃতির বুকে হিংস্র কামড় বসিয়ে দেয় ।


গ্রামে শীতের সকাল :

শীতের সকালের সৌন্দর্যময় উপস্থিতিটা ঘটে গ্রামেই । গাছের পাতায় , ধানের শীষে কিংবা ঘাসের ডগায় জমে থাকে শিশিরবিন্দু । পূর্ব আকাশে কুয়াশার ভারি পর্দা ঠেলে সূর্য যখন ক্ষীণ মিষ্টি কিরণ ছড়ায় তখন গ্রামের প্রকৃতি ধারণ করে এক অনন্য রূপ । শীতের সকালে বাগানে প্রস্ফুটিত গােলাপ , বেলি , বকুল , চামেলি সবার মন কেড়ে নেয় । শিশিরবিন্দু মুক্তোদানার মতাে চিকচিক করে ওঠে । মিষ্টি রােদ দেহমনে এনে দেয় অনাবিল সুখাবেশ । নদীবক্ষের প্রমত্ততা যায় থেমে । নীরব - নিথর প্রকৃতির সাথে নদীও যেন একাত্মতা ঘােষণা করে । পানি থেকে উথিত হয় পাংশু ধোঁয়া । শীত নিবারণের জন্যে গ্রামীণ মানুষেরা জড়াে হয় আগুনের পাশে ।


শহরে শীতের সকাল :

গ্রামের মতাে শহরে শীতের সকাল মােহময় রূপে দৃষ্টিগ্রাহ্য হয় না । কেননা এখানে দূর্বাঘাস নেই , নেই ধানের শীষ । সূর্য এখানে ওঠে ইট - কাঠের তৈরি দালানের আড়ালে । সকালে যখন গাড়ির বাতি জ্বলে কিংবা পৌর বাতির আলাে জ্বলতে থাকে তখন কুয়াশা আবৃত শহরের পান্ডুরতাই শুধু তীব্র হয়ে ওঠে । শহুরে মানুষের আয়েশী জীবনে সকাল চলে যায় ঘুম - তন্দ্রায় । দেখা হয় না প্রকৃতির রূপ । শুধু দৃষ্টিবিভ্রমে পড়া কাকের কর্কশ কলরবে বােঝা যায় সকাল হয়েছে ।


শীতের সকালের পিঠাপুলি :

শীতের সকালে কৃষকদের মাঝে আনন্দের জোয়ার বয়ে যায় । এমন সময় কৃষাণীও বসে থাকে না । সে ধান ভেনে চাল কুটে পিঠা তৈরির জন্য প্রস্তুত হয় । ফসল তুলে ঘরে আনলেই শীতের পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে যায় । শীতের সকালে পিঠা তৈরির সময় মৌ মৌ সুগন্ধ ভেসে এলে মন আনন্দে ভরে ওঠে । পিঠে খাওয়ার আনন্দে উদ্বেলিত কবিকণ্ঠে ধ্বনিত হয়েছে-

“ পৌষ পার্বণে পিঠা খেতে বসে খুশিতে বিষম খেয়ে , আরও উল্লাস বাড়িয়েছে মনে মায়ের বকুনি পেয়ে । ”

খেজুর গাছ থেকে নামে টাটকা রস । ঘরে ঘরে তৈরি হয় রসের পায়েশ । রসনা বিলাসের জন্যে শীত ঋতুর কোনাে তুলনা নেই ।


ধনী ও গরিবের শীতের সকাল :

ধনীর জন্য শীতের সকাল মিষ্টি মধুর লগ্ন । রঙ - বেরঙের গরম কাপড়ের নিচে শরীর লুকিয়ে ধনীরা সুখানুলভ করে । পিঠাপুলির স্বাদ নেয় পরিতৃপ্তিতে । শীতের আমেজে ধোঁয়া ওঠা চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে ধনীরা লাভ করে অমৃতের স্বাদ । কিন্তু গরিবের কাছে শীতের সকাল এক অবাঞ্ছিত বিড়ম্বনা মাত্র । যাদের কাপড় কেনার সামর্থ্য নেই , ভােরের ভারি বাতাস তাদের হাড়ে নির্মমভাবে কামড় বসায় । ঠরঠর করে কাঁপতে থাকে মানবসন্তান । প্রতিবছর শীতকালে গ্রামবাংলার আনাচে - কানাচে অনেক শীতার্ত মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে । শহরের ফুটপাতে শীতের সকালে দেখা যায় কুকুর ও টোকাইদের জড়াজড়ি করে শীত নিবারণের আদিম প্রচেষ্টা ।


শীতের সকালের ভাবরূপ :

বাংলা কাব্যে শীতের স্থান কম , বর্ষার প্রাধান্য লক্ষণীয় । মেঘ - মেদুর বিরহী চিত্তহারিণী বর্ষা , শরতের স্বর্ণমাধুর্য , বসন্তের আনন্দ হিল্লোলে মুখরিত কবিকুল । রিক্ত , বৃক্ষ , কঠোর ও শ্রীহীন শীত । তবু তারও আছে আপন সম্পদ - সরষে ক্ষেতের শীত মাধুরী , অতসী , গাঁদা , দোপাটি , ডালিয়ার রূপের ডালি - তৃণশীর্ষে একটি শিশিরবিন্দু । সত্যি শীতের সকাল বড়ই আমেজি । কী গ্রামে , কী শহরে শীতের রাত শেষ হলেও ভােরের আমেজ তাতে আসে না । অপূর্ব শান্ত প্রকৃতি ভােরের আবছা আলো - আঁধারিতে কেমন যেন রহস্যঘন রূপ ধারণ করে হাতছানি দেয় প্রকৃতির উদার বুকে আশ্রয় নিতে । কিন্তু শহরে কোথায় সে অনন্ত আকাশের নিঃসীমতা যেখানে হারিয়ে যাব ।


শীতকালের বিপত্তি :

শীতের সকালে পরিবেশ কুয়াশাচ্ছন্ন থাকে । ফলে অল্প দূরেও স্পষ্ট কিছু দেখা যায় না । মনে হয় কুয়াশার সাদা পর্দা ছাড়া সামনে কিছু নেই । কুয়াশাচ্ছন্ন অবস্থায় সড়কপথে বা নৌপথে চলাচল হয়ে ওঠে ঝুঁকিপূর্ণ । এ সময় রাস্তাঘাটে যানবাহন চলাচলের ফলে দুর্ঘটনা ঘটে সবচেয়ে বেশি । নদীপথে লঞ - স্টীমার চলাচলের ক্ষেত্রেও সমস্যা সৃষ্টি হয় । শীতের সকালে হাড় কাঁপানাে শীতে মানুষ ও প্রকৃতি ভােগে জড়তা ও বিষন্নতায় ।


উপসংহার :

আমাদের দেশের আর্থ - সামাজিক ও প্রাকৃতিক পরিবেশে শীতের সকালের অনুভূতি মিশ্র । শীতের সকাল যেমন মিষ্টি মধুর ও উপভােগ্য ; তেমনি দারিদ্র্যক্লিষ্ট মানুষের জন্যে অবাঞ্ছিত দুর্ভোগের প্রহর । তবে বাংলার প্রকৃতিতে শীতের সকাল যে রূপচ্ছটা ছড়িয়ে দেয় সত্যিই মনােমুখকর ।


ভালো কিছু ভালো ফলাফল প্রাপ্তির সহায়ক তাই গুণ ও মানের প্রশ্নে আমরা সর্বদা সচেতI


রচনা নম্বার→২


কুয়াশার চাদর গায়ে মুড়িয়ে শীতের সকাল হাজির হয় । প্রকৃতি যেন নির্জীব , অসাড় , অলস রূপ ধারণ করে । চারদিক কুয়াশায় আচ্ছন্ন থাকে বলে দূরের জিনিস ঝাপসা , অস্পষ্ট মনে হয় , কিছুই নজরে পড়ে না । বনানীর গাছপালা , তরুলতা শুষ্ক ও পাণ্ডুর বর্ণ ধারণ করে দাঁড়িয়ে থাকে । ঘরে বাইরে সর্বত্র এক নিদারুণ স্থবিরতা - ব্যস্ততার লেশমাত্র কোথাও যেন নেই । এমনি এক ঘােমটা টানা লাজুক নববধূর সাজে শীতের সকালের আবির্ভাব ঘটে । সূর্যের আলাে পাবার আশায় সবাই যেন ব্যাকুল ।

কুয়াশার ঘন আবরণ ভেদ করে সূর্যরশ্মিকে আসতে বড় বেগ পেতে হয় , বােধ হয় , সময়ও বেশী লাগে । তাই রাত অনেক আগে পােহালেও বেলা নয়টা অবধি সূর্যের আলাের দেখা পাওয়া ভার । কেউ কেউ সকাল সকাল লেপ - কাঁথা ছাড়তে চায় না । অনেক গৃহবাসী আগাগােড়া লেপ গায়ে মুড়ি দিয়ে ঘরের মধ্যে চুপটি মেরে শুয়ে থাকে । তবে গৃহত্যাগী গবাদি পশুর হাঁকডাকে প্রভাত হয় । সকাল হওয়ার লক্ষণ প্রকাশ পায় ।

কিন্তু জীবনের তাড়া আছে , কাজ ছাড়া গতি নেই । তাই অনিচ্ছা সত্ত্বেও দেরিতে হলেও অনেকে শয্যা ত্যাগ করে ঘর ছেড়ে বের হয় । মুখে - হাতে পানি লাগাতে সবারই যেন অনীহা । বাচ্চাদের তাে কথাই নেই । তারা বিছানা ছাড়তে নারাজ । অগত্যা মা এর বকুনি খেয়ে তারা হাত - মুখ ধুতে বসে । একটু উত্তাপের জন্য তখন যেন সবাই উদগ্রীব । গ্রামে - গঞ্জে রাস্তার মােড়ে বা ঘরের আঙ্গিনার এক কোণে অনেককে আগুন পােহাতে দেখা যায় । বিশেষতঃ , ছেলেপেলে ও বুড়ার দল নাড়ার আগুন জ্বালিয়ে ঘিরে বসে । আগুনের ছােট কুণ্ডলীকে ঘিরে আগুন পােহাতে যে কি আনন্দ !

কাজের তাগিদে কৃষাণ সকাল সকাল শয্যা ত্যাগ করে । মৌসুমী শস্যের আশায় সে তাড়াহুড়া করে মাঠে যায় । কিষাণী ডালা হাতে সবজির ক্ষেতে রওয়ানা হয় । রান্নার জন্য শাকসবজি সংগ্রহে ব্যস্ত হয় । খেজুর গাছের হাড়ির পাশে রসপিপাসু পাখিরা আনন্দে মেতে উঠে । কিন্তু এ আনন্দ বেশীক্ষণ থাকে না । কাক ডাকা ভােরেই ছুটে আসে গাছুয়া , রসের হাঁড়ি নামালে ছুটে আসে ছেলেমেয়ের দল । এ কনকনে শীতেও রসপানের লােভটা কেউ যেন চেপে রাখতে পারে না । রােদে বসে গরম গরম মুড়ি চিবাতে ভারি মজা ! তাই অনেকে কোঁচা ভরে মুড়ি নিয়ে উঠানে বসে বসে মুড়ি চিবায় আর রােদ পােহায় । শিশির - ভেজা দূর্বা এক অপরূপ রূপে ঝলমল করে । সূর্যের আলাে যখন দূর্বা দলের উপর ছড়িয়ে পড়ে , তখন তার হাসিতে যেন মুক্তা ঝরে । এ দৃশ্য বড় সুন্দর , বড় মনমাতানাে ! কিন্তু কে দেখে দূর্বার এ অপরুপ রূপ ? সবাই তখন রােদ - পিয়াসী । কেউ উঠানে বসে , কেউ বা বারান্দায় , কেউ বা রাস্তায় দাঁড়িয়ে রােদ পােহাতে ব্যস্ত । তাই দূর্বা ঘাসের হাসি কেউ না দেখায় সে অভিমানে ম্লান হয়ে যায় । তার মুক্তাঝরা হাসি নিত হয়ে পড়ে ।

শীতের সকালে নদীতীরও আবছা আঁধারে ঢাকা পড়ে যায় । নদীর বুকে কুয়াশা যেন নদী বক্ষ ভেদ করে উপরে উঠে আসে । মনে হয় , পানি যেন সিদ্ধ হচ্ছে আর সেই সিদ্ধ পানি বাষ্পকারে নদীর উপরে উঠে আসছে । মাছখেকো পাখিরা সুযােগের অপেক্ষায় থাকে ।

শীতের সকাল নাগরিক সভ্যতাকেও দোলা দেয় । অফিসে - আদালতে , স্কুল - কলেজে যেতে কারাে যেন তাড়া নেই । কেমন যেন এক গদাই লস্করী চাল । তবু যেতে হয় । গায়ে তেল মেখে কেউ কেউ রোদে গা কিছুটা গরম করে নেয় । তারপর কোন রকমে গায়ে দুই এক বালতি পানি তাড়াহুড়া করে ঢেলে দিয়ে কিংবা পুকুরে ঝুপ করে এক ডুব মেরে গােসলের কাজ শেষ করে ফেলে । অফিসের ব্যালকনিগুলােও ফাকা থাকে না । কাজ ফেলে চেয়ার পেতে অনেককে রােদ পােহাতে দেখা যায় । চায়ের দোকানগুলােতে বেজায় ভীড় । এক কাপ চা না হলে চলে না । শরীর যেন জমে কাঠ হয়ে গিয়েছে । পেটের নাড়িভুড়ি পর্যন্ত যেন জমে গিয়েছে । তাই গরম গরম চা খেয়ে শরীরটাকে চাঙ্গা করতে অনেকে বেশ ব্যস্ত হয়ে পড়ে । বাবুরা তাে কোটের ভেতর হতে হাত দুটো বের করতেই নারাজ ।

কিন্তু শীতের এ আড়ষ্টভাব বেশীক্ষণ স্থায়ী হয় না । সূর্যকিরণ কুয়াশা ভেদ করে । দেরিতে হলেও পৌছে । পৃথিবী আলােকচ্ছটায় উদ্ভাসিত হয়ে উঠে । বেলা হলে আবার শুরু হয় কর্মজীবনের ব্যস্ততা , জনজীবনের প্রাণ চঞ্চলতা ।


আরো পড়ুনঃ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন